No icon

বোচাগঞ্জে ৩৩৩ নাম্বারে কল দিয়ে খাদ্য সহায়তা পেলেন ডিমলা রানী- মুই খুব খুশি হইছু যে মক তরা খাবার দিবা আইছেন।

যোদ্ধা ডেস্কঃ॥ ৩৩৩ নাম্বরে কল দিয়ে খাদ্য সহায়তা পেলেন ডিমলা রানী রায় (৫৫) নামে এক দিন মজুর  বিধবা । করোনায়কালীন সময়ে লকডাউনে কাজ না থাকায় অদ্যাহারে অনারে দিন চলছিল তার। 
মঙ্গলবার দুপুরে দিনাজপুরের বোচাগঞ্জ উপজেলার ২ নং ইশানিয়া ইউনিয়নের মালিপাড়া গ্রামের মৃত তারিনি রায়ের স্ত্রী ডিমলা রানী রায় (৫৫) বাসায় খাদ্য সামাগ্রী পৌঁছে দেন বোচাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ছন্দা পাল। 
জানা যায়, ডিমলার ছোট্র দুই নাতীকে নিয়ে বসাবাস করে চেকার দিয়ে তৈরি বেড়া ও উপরে টিন দেয়া একটি ঘরে। বাড়ী দেখলেই বুঝা যায় দারিদ্রতার চাপ। তিন কন্যা সন্তান ছোট থাকতেই বৃদ্ধা ডিমলার স্বামী মৃত্যুবরণ  করেন। স্বামীর মৃত্যুর পর জীবন জীবিকার তাগিদে মাঠে ঘাটে যখন যা কাজ পান তা করেন ডিমলা। এইভাবে কষ্ট করেই তিন কন্যা সন্তানকে বিয়ে দিয়েছে। এই বয়সে এসেও তাকে মাঠে কাজ করতে যেতে হয়। কিন্তু  করোনাভাইরস সংক্রমণ বৃদ্ধির কারণে কিছুদিন ধরে কাজ পাননি তিনি। আবার করোনাভাইরস সংক্রমণের ভয়ে কাজ খুজতেও যেতে পারছেননা তিনি। এমন অবস্থায় প্রতিবেশীর বাড়ীতে টেলিভিশনে খবর দেখে খাদ্য সহয়তা চেয়ে ৩৩৩ নম্বরে ফোন করেন তিনি । সেখান থেকে ডিমলার কষ্টের কথা জানানো হয় বোচাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ছন্দা পালকে। খবর পেয়ে তিনি নিজেই  ডিমলার  বাসায় খাদ্য সামগ্রী নিয়ে হাজির হন। 
খাদ্য সামাগ্রী পেয়ে ডিমলা বলেন,কয়েকদিন ধরি খুব কষ্টত আছু। ঠিক মত চুলা জ্বালাবা পারছুনা। কয়দিন ধরি কাজকাম বন্ধ আছে। কুনো কামাই নাই বাহে। এইতনে টিভিত দেখি ৩৩৩ কল দিছুনু। ওরা ফির মর কষ্টের কাথা গুলা শুনিলি । মুই খুব খুশি হইছু যে মক তরা খাবার দিবা আইছেন।
এবিষয় বোচাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ছন্দা পাল বলেন, ৩৩৩ নাম্বারে ফোন দিয়ে খাদ্য সহায়তা চেয়েছিল ডিমলা। তার বাড়ীর অবস্থা খারাপ থাকায় এবং তার বাড়ীতে খাবার না থাকায় তাকে আমরা খাদ্য সহায়তা বাসায় পৌঁছে দিয়েছি। এই উপজেলায় যারা ৩৩৩ নাম্বানে ফোন করে খাদ্য সহায়তা চাইবেন তাদের সবার বাড়ী গিয়ে যাচাই বাছাই করে যারা খাদ্য সহায়তা দেওয়া হবে।  

Comment